বাঘের বিচার


এক অরণ্যে এক বৃদ্ধ বাঘ ছিল। এতোদিন তাহার অত্যাচারে কেউ শান্তিতে নিঃশ্বাসও লইতে পারিতো না। কিন্তু এখন তাহার বয়স হইয়াছে। সে চোখে ভাল দেখিতে পারেনা। তাই অতীতের ন্যায় শিকারও করিতে পারেনা। বৃদ্ধ বাঘ তাই মনে মনে একটা বুদ্ধি আটিলো।

images

বাঘ রাজ্যে ঘোষণা করিলো, এই রাজ্যে আর কেহ কাহাকে হত্যা করিতে পারিবে না। যে যাহার খাদ্য সে নিজ হইতেই খাদ্য হিসেবে হাজির হইবে। যেমন প্রতিদিন কোন মুরগী স্বেচ্ছায় শিয়ালের কাছে ধরা দিবে। আমার যাহারা খাদ্য আছো তাহারা নিজ হইতেই পালা করিয়া হাজির হইবে। ইহাতে রাজ্যে একটা শৃঙ্খলা বজায় থাকিবে। অযথা কেউ কাউকে হত্যা করিলে তাহাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হইবে।’

বনের সকলে তাহা মানিয়া লইলো। আর না মানিয়াই বা কি করিবে। ইহাতে হত্যা কমিবে মনে করিয়া অনেকে সান্ত্বনা লইলো।

একদিন এক হরিণ ঘাস খাইতে যাইয়া এক পিঁপড়ার বাসা মারাইয়া ভাঙিয়া ফালাইলো। অসংখ্য পিঁপড়া হরিণের পায়ের তলায় চাপা পড়িয়া মরিল। রাগে দুঃখে এক পিঁপড়া হরিণের পায়ে কামড় বসাইয়া দিলো।

ক্ষিপ্ত হরিণ বাঘের কাছে বিচার চাইতে গেলো। হরিণ বলিল, ‘মহারাজ, আমি খাইতেসিলাম। পিঁপড়া অযথাই আমাকে কামড়ে দিয়াছে।’

পিঁপড়া বলিল, ‘মহারাজ, হরিণ আমার বাসা ভাঙিয়া দিয়াছে। আমার পরিবারের সদস্যদের অনেকেই ওর পায়ের তলায় চাপা পড়িয়া মরিয়া গিয়াছে।’

হরিণ তখন আবার কহিলো, ‘মহারাজ, আমি ইহা ইচ্ছা করিয়া করিনাই। মনের অজান্তে করিয়া ফালাইয়াছি। কিন্তু পিঁপড়া প্রতিশোধ পরায়ণ হইয়া আমাকে কামড় কাটিয়াছে।’

বাঘ পিঁপড়াকে আর কথা বলিবার সুযোগ দিলো না। পিঁপড়ারকে মৃত্যুদণ্ড দিয়া দিলো।

পিঁপড়া তখন কহিল, ‘আমি দুর্বল এবং আমি মহারাজের খাদ্য নই। এই বিচার যদি মুরগী করিতো তাহা হইলে হরিণকেই নিশ্চিত মৃত্যুদন্ড দেওয়া হইতো।’

মুলকথা: যেখানে স্বার্থের পাল্লা ভারী বিচারের পাল্লা সেই দিকেই ঝুঁকিয়া থাকে।

2 responses to “বাঘের বিচার

  1. পিংব্যাকঃ বাঘের বিচার | যুক্তিবাদী

  2. ঠিক বলিয়াছেন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s